• রোববার   ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ১৬ ১৪২৭

  • || ১৬ রজব ১৪৪২

দৈনিক গোপালগঞ্জ

তামিমদের ভাবনায় উইকেটও

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ২২ জানুয়ারি ২০২১  

ড্রেসিংরুম থেকে মাঠ পেরিয়ে ইনডোরের দিকে চলে যাচ্ছিলেন সাকিব আল হাসান। উল্টো দিক থেকে আসা সৌম্য সরকারের সঙ্গে দুদণ্ড দাঁড়িয়ে ফিরে এলেন উইকেটের কাছে।

তামিম ইকবাল ঠোকাঠুকি করছিলেন ব্যাট-বল নিয়ে। শেষে ড্রেসিংরুমের সামনে থেকে তিনিও হেঁটে গেলেন মাঝমাঠে। বুঝতে চাইলেন দ্বিতীয় ওয়ানডের উইকেটটা কেমন হবে।

এমনিতে মাঠের এসব দৃশ্য চোখ আটকে যাওয়ার মতো কিছু নয়। ম্যাচের আগের দিনের অনুশীলনের ফাঁকে দুই দলের খেলোয়াড়দের উইকেটে চোখ বোলানোটা স্বাভাবিকই। কিন্তু গতকালের উইকেট পর্যবেক্ষণে সাকিব-তামিমদের দৃষ্টিতে নিশ্চিতভাবেই ছিল ভিন্ন কৌতূহল।

চেনা উইকেট কেন এমন অচেনা—এই কৌতূহল আসলে পরশু ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডের পর থেকেই। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেই সাকিব আল হাসানের ম্যান অব দ্য ম্যাচ হওয়া, হাসান মাহমুদের দারুণ অভিষেক কিংবা জয় দিয়ে বাংলাদেশের সিরিজ শুরু করা, প্রথম ওয়ানডে জিতে মাঠ ছাড়ার পর এর কোনোটি নিয়েই আর বাংলাদেশ দলের অন্দরমহলে তেমন আলোচনা নেই। আলোচনা যদি কিছু নিয়ে থাকেই, সেটি মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের উইকেট।

আজ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডের আগেও কিছুটা দুশ্চিন্তা হয়ে থাকছে ওই উইকেটই। জেসন মোহাম্মদের অনভিজ্ঞ এই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে যে বাংলাদেশের ভয়ের কিছু নেই, সেটি প্রথম ওয়ানডেতে আরও স্পষ্ট হয়ে ফুটে উঠেছে। তবে ঘরের মাঠের উইকেটও যদি অচেনা হয়ে ধরা দেয়, তাহলে তো সব প্রতিপক্ষই ‘কঠিন’! আজই সিরিজ জয় নিশ্চিত করতে হলে ওয়েস্ট ইন্ডিজেরও আগে

বাংলাদেশ দলকে জয় করতে হবে সেই কঠিনকে।প্রথম ওয়ানডেতে উইকেটে কিছু অস্বাভাবিক টার্ন দুই দলের ব্যাটসম্যানদের জন্যই বিপদের কারণ হয়েছে। বাংলাদেশ দলের ব্যাটসম্যানদের তো কথা, ব্যাট করাটাই নাকি কঠিন মনে হচ্ছিল সেখানে! ওয়েস্ট ইন্ডিজের ১২২ রানে অলআউট হয়ে যাওয়ার পেছনে সাকিব-হাসান মাহমুদের ভালো বোলিংয়ের সঙ্গে যেমন উইকেটের বন্ধুতা ভূমিকা রেখেছে; তেমনি আকিল হোসেনের অভিষেক ম্যাচেই ৩ উইকেট পাওয়া আর ১২২ রান তাড়া করতে নেমে ১০৫ রানে বাংলাদেশের ৪ উইকেট হারানোতেও ‘অবদান’ ছিল উইকেটের। বাংলাদেশ দলের ম্যাচ–পরবর্তী আলোচনার আবহে তাই মিশে থাকল একটা স্বস্তি। ভাগ্যিস ওয়েস্ট ইন্ডিজের রানটা ১৬০-১৭০ হয়ে যায়নি! এই উইকেটে ১৬০-১৭০ রান তাড়া করে জেতা সহজ হতো না বলেই উপলব্ধি দলের ভেতর।

কাল তো বিসিবির দেওয়া এক ভিডিও বার্তায় বাংলাদেশ দলের পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবসনও বলে ফেললেন উইকেটের কথা, ‘কন্ডিশনটা আদর্শ ছিল না। বল অনেক বেশি টার্ন করেছে। তবে আমাদের দল সবকিছুই মোটামুটি সামলে নিয়েছে।’

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে স্পিন সামলানোর কাজটা আরও ভালোভাবে করতে কাল অনুশীলনে ত্রুটি রাখেননি বাংলাদেশ দলের ব্যাটসম্যানরা। ঐচ্ছিক অনুশীলন হলেও মাঠে গেছেন মূল ব্যাটসম্যানদের সবাই। যে যেভাবে পেরেছেন, যত বেশি সময় পেরেছেন স্পিন বলের বিপক্ষে ব্যাটিং করেছেন। সাকিব-তামিমের পর্যবেক্ষণ তো বটেই, আজ দ্বিতীয় ওয়ানডের উইকেট যে প্রথম ম্যাচের মতোই হওয়ার সম্ভাবনা, সে ইঙ্গিত আছে বিসিবির গ্রাউন্ডস বিভাগ থেকেও। তা ছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের অনভিজ্ঞ দলটাকে স্পিনে ঘায়েল করার পরিকল্পনা তো বাংলাদেশ শিবিরে আছেই।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের পেসার আলজারি জোসেফের ভাবনাও ব্যতিক্রম নয়। আজও যে স্পিনাররাই মিরপুরের উইকেটে ত্রাস হয়ে উঠবেন, তাতে যেন তার কোনো সন্দেহই নেই। কাল সন্ধ্যায় এক অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে সেটিই বলেছেন জোসেফ। তবে বাংলাদেশ দলের হিসাব আর তার হিসাবে একটু পার্থক্য আছে। জোসেফের দৃষ্টিতে প্রতিপক্ষকে চ্যালেঞ্জ জানাতে হলে এই উইকেটে ২১০-২২০ রান লাগবে, ১৬০-১৭০ নয়। প্রথম ম্যাচে সেটা যে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ, তার জন্য অভিজ্ঞতার অভাবকেই দায়ী করেছেন তিনি, ‘আমাদের অভিজ্ঞতার ঘাটতি আছে, সঙ্গে প্রয়োগেও সমস্যা ছিল। তবে এখন আমরা জানি সামনে কী হতে পারে। পরের ম্যাচে তাই অজুহাতের সুযোগ থাকবে না।’জয়ের পরদিন যেমন বিশ্রামে থাকাটাই রীতি, আবার ম্যাচ হারলে পরদিন যেকোনো দলই ভুলত্রুটি শোধরাতে অনুশীলনে ঝাঁপিয়ে পড়ে। এদিক দিয়ে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্যতিক্রমই বলতে হয়। অনুশীলনে না গিয়ে তাদের ওয়ানডে দলটা কাল হোটেলে বিশ্রাম করেই কাটাল। মাঠে গেছেন শুধু টেস্ট দলের খেলোয়াড়েরা।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ