• মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৪ ১৪২৬

  • || ১৩ শা'বান ১৪৪১

দৈনিক গোপালগঞ্জ
সর্বশেষ:
দিনাজপুরে দুই মোটরসাইকেল মুখোমুখি, ব্যবসায়ী নিহত মাওয়ায় ৩ পিকআপ জাটকা উদ্ধার করোনা : আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ লাখ ও মৃত্যু ৭৪ হাজার ছাড়িয়েছে
২৫

নারায়ণগঞ্জে পথচারীদের জন্য জেব্রা ক্রসিং থেকেও নেই

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৪ মার্চ ২০২০  

নারায়ণগঞ্জ শহরে পথচারীদের রাস্তা পারাপারের জন্য আধুনিক ও নিরাপদ জেব্রা ক্রসিং নেই। নগরের ব্যস্ততম বঙ্গবন্ধু সড়কে পথচারীদের স্বস্তিতে চলাচল ও যাতায়াতের উদ্দেশে জেব্রা ক্রসিং তৈরি করা হলেও বর্তমানে তার অস্তিত্ব নেই বললেই চলে।

ব্যস্ত রাস্তায় পথচারীদের পারাপারের জন্য সাদা-কালো ডোরা চিহ্নিত নির্দিষ্ট অংশ জেব্রা ক্রসিং নামে পরিচিত। তদারকি ও ব্যবহারে অসচেতনতায় জেব্রা ক্রসিং ছাড়াই পথচারীরা ঝুঁকি নিয়ে পার হন। চালকরা খোদ জেব্রা ক্রসিংয়ে বাস থামিয়ে যাত্রী তুলেন। আবার কখনো গাড়ি চালকরাও জেব্রা ক্রসিংয়ের সামনে গাড়ি থামান না। জেব্রা ক্রসিংয়ে পথচারী পার হতে দেখেও দ্রুতগতিতে গাড়ি চালিয়ে যান চালকরা। যার ফলে জেব্রা ক্রসিংয়ে সড়ক পারাপারের সুবিধা কোনো অংশেই পান না পথচারীরা। ঝুঁকি নিয়ে সড়ক পার হচ্ছেন প্রতিনিয়তই।

নগরীর চাষাঢ়া চত্বরের চারপাশে ৩টি পয়েন্টে জেব্রা ক্রসিং রয়েছে। আর তা হলো- সোনালী ব্যাংক হতে শহীদ মিনার ও খাজা সুপার মার্কেট হতে সুগন্ধা বেকারি, বায়তুল আমান ভবন থেকে আল জয়নাল ট্রেড সেন্টার পর্যন্ত। সেই সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সড়কের চাষাঢ়া মর্ডান ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সামনে, কালির বাজার ব্যাংকের মোড়, নারায়ণগঞ্জ ক্লাব, দুই নং রেলগেট সংলগ্ন চত্বরে, ডিআইটি আলী আহম্মদ চুনকা পাঠাগার ও মিলনায়তনের সামনে। নগরীর জিমখানা মোড়ে গত বছরের মার্চ মাসে বঙ্গবন্ধু সড়কের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে জেব্রা ক্রসিং নির্মাণ করা হয়েছিল। কিন্তু বছর না পেরুতেই জেব্রা ক্রসিংয়ের রং হালকা হয়ে গেছে। পথচারীসহ চালকদের চোখেই পড়ে না জেব্রা ক্রসিং। সাধারণ নিয়মে জেব্রা ক্রসিংয়ের আগে সাদা দাগের সামনে গাড়ি থামতে হবে। কিন্তু সে নিয়ম মানেন না কেউই। সড়কে দায়িত্বরত আনসার সদস্যরাও এ নিয়ে মাথা ঘামান না।

সরেজমিনে দেখা যায়, বঙ্গবন্ধু সড়কে নির্মিত একাধিক জেব্রা ক্রসিংয়ের সাদা রং হালকা হয়ে গেছে। আবার কয়েকটি পয়েন্টে জেব্রা ক্রসিংয়ের রং প্রায় উঠেই গেছে। বেশিরভাগ পয়েন্টে জেব্রা ক্রসিংয়ের উপরেও দাঁড়িয়ে যায় গাড়ি। নামে মাত্র জেব্রা ক্রসিং থাকলেও সিগনাল দেয়ার কোনো ব্যবস্থা নেই। কোনো সিগনাল দেয়ার ব্যবস্থা না থাকায় জেব্রা ক্রসিং মানতে বাধ্য করতে পারে না ট্রাফিক পুলিশ। জেব্রা ক্রসিংয়ের কাছাকাছি এলে গাড়ির গতি কমানোর নিয়ম থাকলেও অধিকাংশ চালক তা মানেন না।

কলেজছাত্রী শবনম বলেন, ‘স্বাভাবিক ভাবেই আমি একজন পুরুষের মতো দৌড়ে রাস্তা পার হতে পারব না। সেজন্য জেব্রা ক্রসিং আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এখানে জেব্রা ক্রসিং থাকলেও এর সঠিক ব্যবহার হচ্ছে না।’

চাষাঢ়া আমান ভবনের সামনের জেব্রা ক্রসিংয়ের উপর কাভার্ড ভ্যানসহ একাধিক যানবাহন ট্রাফিক সিগনালের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। জেব্রা ক্রসিংয়ে দাঁড়ালে পুলিশ কিছু বলে কিনা জানতে চাইলে হেসে এক চালক বলেন, ‘ পুলিশ এ ব্যাপারে কিছু বলে না। মাঝে মাঝে নিজে থেকেই দাঁড়াই। আজকে তাড়া আছে, তাই খেয়াল করি নাই। রংও অনেকটা উঠে গেছে।’

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল আমিন বলেন, ‘জেব্রা ক্রসিং মানুষের চলাচলের সুবিধার জন্যই তৈরি করা হয়েছে। এক্ষেত্রে চালক ও পথচারীদের সচেতনতা জরুরি। অবৈধ পারাপার বন্ধে কাঁটাতার দিয়েও রোধ করা যাচ্ছে না। পাশাপাশি চালকদের সচেতন হবার জন্য একাধিকবার আমরা মালিকদের অবগত করেছি। তবে জেব্রা ক্রসিংয়ের রং উঠে গেলে আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে নতুন রং করে দেব।’

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ
জনদূর্ভোগ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর