• শুক্রবার   ২৯ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৭

  • || ০৬ শাওয়াল ১৪৪১

দৈনিক গোপালগঞ্জ
৩৪০৭

ফিরে দেখা আ’লীগ সরকারের সফলতা : ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গঠন

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ৩ জানুয়ারি ২০২০  

বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। রুপকল্প ২০২১ এবং একশ’ বছরের ডেল্টা প্লানকে সামনে রেখে দূর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। উন্নয়নের মহান রুপকার, গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনার দূরদর্শী চিন্তাধারা ও যুগোপযোগী বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে দেশ থেকে দূর হয়েছে ক্ষুধা-দারিদ্র্য-বেকারত্ব। শিক্ষা, কৃষি, শিল্প, ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ, নারীর ক্ষমতায়ন, সামাজিক নিরাপত্তা, স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠাসহ দেশের প্রতিটি সেক্টরে হয়েছে অভূতপূর্ব উন্নয়ন। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন নিয়ে আমাদের ধারাবাহিক পরিবেশনা।

সমতার ভিত্তিতে সব অঞ্চলের টেকসই উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার কাজ সরকার হাতে নিয়েছে। ৩৭টির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য ৩০ হাজার একর জায়গার মধ্যে ইতোমধ্যে ১১৫০ একর জমি দেশী-বিদেশী বিনিয়োগকারীর মধ্যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া কক্সবাজারের মহেশখালীতে ৪টি, ফেনী, নাটোরসহ বেশ কয়েকটি  অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে উঠলে এসব অঞ্চল থেকে অতিরিক্ত ৪০ বিলিয়ন ডলার আয়ের সুযোগ সৃষ্টি হবে। প্রায় ১ কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হবে। কর্নফুলী টানেল ৮,৪৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে দিয়ে চার-লেনের ৩.৫ কি.মি. টানেল নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে। এ টানেলটি ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার এশিয়ান হাইওয়ে হয়ে ভারত ও মিয়ানমারকে সংযুক্তির মাধ্যমে রিজিওনাল কানেক্টিভিটি তৈরি করবে। এ টানেলের নির্মিত হলে চট্টগ্রাম-কক্সবাজারের মধ্যে দূরুত্ব হ্রাস পাবে। এর ফলে দেশের পূর্বাঞ্চলে নতুন শিল্পকারাখানা গড়ে উঠবে। অনেক লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। আগামী ২০২০ সালের মধ্যে টানেল নির্মাণ শেষ হবে।

সুদূর অতীত থেকে বিশ্ববাণিজ্যে বাংলাদেশের যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে। তবে নিরাপদ ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ না থাকায় দেশী বিদেশী অনেক উদ্যোক্তাই এদেশে শিল্প কল কারখানা গড়ে তুলতে অনীহা দেখিয়েছিলেন। স্বাধীনতার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু মেখ মুজিবুর রহমান দেশে বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ গড়ে তুলতে সব ধরণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে অন্যান্য সরকারের আমলে এদিকটি উপেক্ষিত ছিল। বর্তমান সরকার দেশ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণের পর ১৯৯৬ সালে এ সংক্রান্ত কয়েকটি উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিল। কিন্তু তারপর বিএনপি-জামায়াত জোট রাষ্ট্রক্ষমতায় এসে সেগুলো বাতিল করে দেয়। ২০০৮ এ বিপুল জনসমর্থন নিয়ে ফের ক্ষমতায় এসে আওয়ামীলীগ সরকার পূর্বের পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়ন ও নতুন প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে। এরই ধারাবাহিকতায় অর্থনৈতিক অঞ্চল গঠন প্রক্রিয়া এগিয়ে যেতে থাকে। আশা করা হচ্ছে, প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হলে দেশের অর্থনীতিতে তা বিরাট অবদান রাখবে।  

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ
উন্নয়ন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর