• বুধবার   ০৩ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২০ ১৪২৭

  • || ১১ শাওয়াল ১৪৪১

দৈনিক গোপালগঞ্জ
১৯৬৯

ফিরে দেখা সরকারের সফলতা : সমুদ্র সীমানার বিরোধ নিষ্পত্তি

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯  

বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। রুপকল্প ২০২১ এবং একশ’ বছরের ডেল্টা প্লানকে সামনে রেখে দূর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। উন্নয়নের মহান রুপকার, গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনার দূরদর্শী চিন্তাধারা ও যুগোপযোগী বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে দেশ থেকে দূর হয়েছে ক্ষুধা-দারিদ্র্য-বেকারত্ব। শিক্ষা, কৃষি, শিল্প, ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ, নারীর ক্ষমতায়ন, সামাজিক নিরাপত্তা, স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠাসহ দেশের প্রতিটি সেক্টরে হয়েছে অভূতপূর্ব উন্নয়ন। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন নিয়ে আমাদের ধারাবাহিক পরিবেশনা ‘উন্নয়নের ১১ বছর’।

তিন দশকের বেশি সময় ধরে প্রতিবেশী মিয়ানমার এবং ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমার বিরোধ চলছিল। ২০০১ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের আনক্লস অনুসমর্থনের মধ্যে দিয়ে সমুদ্রে ন্যায্য অধিকারের ভিত্তি প্রতিষ্ঠিত হয়।  সমুদ্র আইনবিষয়ক জাতিসংঘের কনভেনশন আনক্লজ অনুসমর্থনের পর ১০ বছরের মধ্যে অর্থাৎ ২০১১ সালের জুলাই মাসের মধ্যে মহীসোপানের দাবী জাতিসংঘের নিকট জমা দেওয়ার কথা। কিন্তু ২০০৮ সাল পর্যন্ত সে কাজ সম্পন্ন হয়নি। ২০০৯ সালের অক্টোবরে আন্তর্জাতিক সালিসি আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। আনক্লস মেনেই বাংলাদেশ জার্মানির হামবুর্গে অবস্থিত ইটলসে ১৪ ডিসেম্বর ২০০৯ সালে মামলাটি দাখিল করে বাংলাদেশ। বিরোধ নিষ্পত্তিতে ইটলসের বিচারিক এখতিয়ার মেনে নিতে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে বিশেষ মতৈক্য হয়। এটি পরে ইটলসের ১৬তম মামলা হিসেবে নথিভুক্ত হয়। ২০১০ সালের ১ জুলাই বাংলাদেশ নিজের পক্ষে সব দালিলিক প্রমাণ আদালতে উপস্থাপন করে। আর মিয়ানমার তাদের প্রমাণ জমা দেয় সে বছরের ১ ডিসেম্বর। মিয়ানমারের দাবির বিপক্ষে বাংলাদেশ বক্তব্য উপস্থাপন করে ২০১১ সালের ১৫ মার্চ। আর বাংলাদেশের যুক্তির বিপক্ষে মিয়ানমার তাদের বক্তব্য তুলে ধরে ২০১১ সালের ১ জুলাই। ২০১১ সালের ৮ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ও মিয়ানমার দুই দফায় মৌখিক শুনানিতে নিজেদের পক্ষে দাবিগুলো তুলে ধরে। সমতা ও ন্যায্যতার ভিত্তিতে উপকূল থেকে ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত সমুদ্রসীমার দাবি পেশ করে বাংলাদেশ। অন্যদিকে মিয়ানমারের যুক্তি ছিল, সমুদ্র উপকূল থেকে সমদূরত্বের ভিত্তিতে বাংলাদেশের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধের নিষ্পত্তি হওয়া উচিত। এই রায়ের ফলে উপকূল থেকে ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত সমুদ্রসীমায় বাংলাদেশের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। মিয়ানমারের পর ভারতের সঙ্গেও বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা নির্ধারিত হয়। ২০১৪ সালের ৭ই জুলাই ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমা মামলার নিষ্পত্তি হয়।

সালিসি আদালতের রায়ে বঙ্গোপসাগরের বিরোধপূর্ণ ২৫ হাজার ৬০২ বর্গকিলোমিটার এলাকার মধ্যে ১৯ হাজার ৪৬৭ বর্গকিলোমিটার সমুদ্র এলাকা বাংলাদেশ পেয়েছে। বাকি ছয় হাজার ১৩৫ বর্গকিলোমিটার পেয়েছে ভারত। এই দুটি রায়ের ফলে মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নির্ধারণের বিষয়টি সুরাহা হওয়ায় এক লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটারের টেরিটোরিয়াল সমুদ্র, ২০০ নটিক্যাল মাইল একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং চট্টগ্রাম উপকূল থেকে ৩৫৪ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানের তলদেশে অবস্থিত সব ধরনের প্রাণিজ ও অপ্রাণিজ সম্পদের ওপর বাংলাদেশের সার্বভৌম অধিকার প্রতিষ্ঠা নিশ্চিত হয়।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ
উন্নয়ন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর