• বুধবার   ০৩ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২০ ১৪২৭

  • || ১১ শাওয়াল ১৪৪১

দৈনিক গোপালগঞ্জ
২৭৮

বাসে নার্স গণধর্ষণ-হত্যা, প্রতিবাদে মুখর কিশোরগঞ্জ

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ৯ মে ২০১৯  

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে চলন্ত বাসে নার্স শাহিনুর আক্তারকে গণধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় প্রতিবাদমুখর হয়েছে জেলাবাসী। আজ বৃহস্পতিবার জেলা শহরে এবং জেলার অন্যত্র হত্যার ঘটনায় মানববন্ধন, প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে। চিকিৎসক, নার্স, গণমাধ্যমকর্মী, শিক্ষার্থী, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা এসব প্রতিবাদে অংশ নেন।

কিশোরগঞ্জ পৌর শহরে বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে তিনটি মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

সকাল ১০টার দিকে বাংলাদেশ নার্সেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএনএ), জেলা শাখার উদ্যোগে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের সামনে স্টেশন রোডে মানববন্ধন করা হয়। এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন কিশোরগঞ্জ সদর পৌরসভার মেয়র মো. পারভেজ মিয়া, ডেপুটি সিভিল সার্জন মো. মুজিবুর রহমান, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জেলা শাখার সম্পাদক আবদুল ওয়াহাব, বিএনএ কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি মো. আ. ছালাম ভূঞা, সাধারণ সম্পাদক মো. ওমর ফারুক প্রমুখ।

সকাল সাড়ে ১০টায় শহরের স্টেশন রোডের কালীবাড়ি এলাকায় একই দাবিতে মহিলা পরিষদ মানববন্ধন করে। এ সময় অন্যদের মধ্যে জেলা শাখার মহিলা পরিষদের সভাপতি মায়া ভৌমিক, সাধারণ সম্পাদক আতিয়া হোসেন, সাবেক সভাপতি সুলতানা রাজিয়া ও নারীনেত্রী বিলকিছ বেগম বক্তব্য দেন।

বেলা ১১টার দিকে একই সড়কের গৌরাঙ্গ বাজার এলাকায় নার্স শাহিনুর আক্তারের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বাম গণতান্ত্রিক জোট মানববন্ধন করে। এতে অন্যদের মধ্যে জেলা সিপিবি সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আইনজীবী এনামুল হক, জেলা বাসদ নেতা শফিকুল ইসলাম বক্তব্য দেন।

৬ মে ঢাকার ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জ্যেষ্ঠ নার্স হিসেবে কর্মরত শাহিনুর আক্তার বাসে করে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার বাহেরচর গ্রামের নিজ বাড়িতে আসছিলেন। পথে বাজিতপুরের জামতলি গজারিয়া এলাকায় শাহিনুরকে চলতি পথেই স্বর্ণলতা বাসের চালক নুরুজ্জামান নুরু, চালকের সহকারী লালন মিয়াসহ কয়েকজন জোরপূর্বক গণধর্ষণ শেষে মাথার পেছনে আঘাতে হত্যা করে ফেলে রেখে যায়। ঘটনায় চালক, চালকের সহকারীসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

 পৌর শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এই কর্মসূচি পালিত হয়। এতে ভৈরবের চিকিৎসক, নার্স, গণমাধ্যমকর্মী, শিক্ষার্থী, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের অন্তত ২০০ মানুষ অংশ নেন।

মানববন্ধন আলোচকেরা বলেন, অর্থনৈতিক সূচকে অগ্রগতি হয়েছে বেশ। অবকাঠামো উন্নয়নও দৃশ্যমান। কিন্তু কোনোভাবেই কমছে না সামাজিক অস্থিরতা। সমাজের নানা খাত এখন অবক্ষয়ের শিকার।

বক্তারা বলেন, শাহিনুর আক্তার হত্যা সামাজিক অবক্ষয় ও অস্থিরতার উদাহরণ। মানববন্ধন থেকে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচার দাবি করা হয়।

আলোচনায় অংশ নেন পৌর মেয়র ফখরুল আলম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. জালাল উদ্দিন, আবাসিক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এন কে জাহাঙ্গীর, ভৈরব ডক্টর ক্লাবের সভাপতি আজিজুল হক, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, ডাচ্‌–বাংলা ব্যাংক ভৈরব শাখার ব্যবস্থাপক মনিরুজ্জামান, রিপোটার্স ক্লাব সভাপতি তাজুল ইসলাম, প্রথম আলো ভৈরব অফিসের নিজস্ব প্রতিবেদক সুমন মোল্লা, ভৈরব বন্ধুসভার উপদেষ্টা জাহিদুল হক প্রমুখ।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ