• বুধবার   ১২ মে ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২৯ ১৪২৮

  • || ৩০ রমজান ১৪৪২

দৈনিক গোপালগঞ্জ

বিএনপি ক্যাডার শ্যামলের সন্ত্রাসী অতীত লুকোনোর অপচেষ্টা

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৬ এপ্রিল ২০২১  

ঢাকা উত্তরে বিএনপির ক্যাডার শ্যামল মাহমুদ অঞ্জন এবার গ্রেফতারের ভয়ে আওয়ামীলীগ সমর্থক সাজার চেষ্টা করছে। বিগত ২০১৩ সালে বিএনপি-জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসে সক্রিয় অংশগ্রহণ করে সে বিএনপি হাইকমান্ডের আস্থা অর্জন করে। সে সময় গানপাউডার দিয়ে যাত্রীবাহী বাস পোড়ানোর মিশনে সবচাইতে সক্রিয়দের একজন শ্যামল মাহমুদ অঞ্জন উত্তরা পাঁচ নম্বর সেক্টরের বাসিন্দা আব্দুর রশিদ ব্যাপারীর ছোট ছেলে। খুব অল্প বয়স থেকেই অঞ্জন মাদকাসক্তি আর বিকৃত জীবনাচারে জড়িয়ে পড়ে। এসময়ে সে যুক্ত হয় জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাথে। পরবর্তীতে সে ঢাকা উত্তর ছাত্রদলের সহকারী আন্তর্জাতিক সম্পাদকের দায়িত্ব পায়।

২০১৩ সালে বিএনপি-জামায়াতের দেশব্যাপী চরম সন্ত্রাস শুরু হলে শ্যামল মাহমুদ অঞ্জন বাসে আগুন দেয়ার মিশনের পাশাপাশি সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে একাধিক ভুঁয়া আইডির মাধ্যমে আওয়ামীলীগ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ব্যাপক অপপ্রচার চালাতে থাকে। এসময়ে ঢাকা শহরের বিভিন্ন থানায় বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে মামলা হতে থাকলে শ্যামলের বিরুদ্ধেও অনেকগুলো মামলা হয়। কিন্তু চতুর শ্যামল চলে যায় আন্ডারগ্রাউন্ডে। এভাবেই সে আরো বেশ কয়েক মাস সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালানোর পর ২০১৪ সালের শেষদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হয়ে আমেরিকায় পালিয়ে যায়। কিন্তু আমেরিকার ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার কারণ ছিলো মার্কিন ভিসা। তাই আমেরিকায় পৌঁছার পর শ্যামল মাহমুদ অঞ্জন ভর্তি হওয়া ওই ইউনিভার্সিটিতে উঁকিও দেয়নি। বরং সেখানে অবস্থানকালেও সে স্থানীয় বিএনপির বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার পাশাপাশি আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে সাইবার অপপ্রচার চালাতে থাকে। এরই মাঝে শ্যামল মাহমুদের সন্দেহজনক তৎপরতার কারণে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই শ্যামলকে ডেকে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। এ পর্যায়ে এফবিআই এর জিজ্ঞাসাবাদ কেন্দ্র থেকে ফিরে এসেই সে সড়ক পথে কানাডায় পাড়ি জমায়।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ