• সোমবার   ১০ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৬ ১৪২৭

  • || ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

দৈনিক গোপালগঞ্জ
২৬১

বিদেশফেরত প্রবাসীকর্মীদের জন্য আসছে ঋণ-বিশেষ প্যাকেজ

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৫ এপ্রিল ২০২০  

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের কারণে বিদেশফেরত প্রবাসীকর্মীদের সহায়তার জন্য সর্বোচ্চ ৪ শতাংশ সুদে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়। এজন্য শিগগিরই ২০০ কোটি টাকার একটি বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজ পেতে যাচ্ছে প্রবাসীরা। মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্রে থেকে জানা গেছে, প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংককে এ সংক্রান্ত একটি পরিকল্পনা তৈরির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। ঋণ সহায়তার টাকা কোন প্রক্রিয়ায় নেওয়া হবে এবং কোথায়, কীভাবে বিতরণ করা হবে, সে বিষয়ে একটি পরিকল্পনা ব্যাংক থেকে দিলে মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে। নতুন সহায়তা প্যাকেজে মূলত বিদেশফেরত কর্মীদের জন্য। করোনা ভাইরাসের প্রভাবে এরইমধ্যে যারা দেশে ফেরত এসেছেন এবং যারা ফেরত আসবেন, তাদের জন্য এই সহায়তা প্যাকেজ আনতে যাচ্ছে মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, করোনার কারণে প্রবাস থেকে ইতোমধ্যে যে কর্মীরা ফেরত এসেছে এবং যারা ফেরত আসবে, তাদের সহায়তার জন্য সরকার সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা করতে যাচ্ছে। সম্প্রতি পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, অর্থ মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবদের সঙ্গে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে, প্রাথমিকভাবে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের তহবিল থেকে সর্বোচ্চ ৪ শতাংশ সুদে একটি ঋণ সুবিধা চালু করা হবে। এটা করা হবে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে। আমরা এখন গাইড লাইন তৈরি করার কাজ করছি। প্রায় ২০০ কোটি টাকার একটি প্যাকেজ হতে পারে। এটা এখনও চূড়ান্ত হয়নি। তবে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, প্রথম পর্যায়ে ২ থেকে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হবে। এই ঋণের সুদ হবে ২ থেকে ৪ শতাংশের মধ্যে। শুধু তাই নয় ১ থেকে ৩ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ নিতে কোন জামানত লাগবে না বলেও প্রস্তাব রাখছে মন্ত্রণালয়। তবে এসব বিষয়ে ব্যাংক পরিকল্পনা নিয়ে একটা প্রডাক্ট বানিয়ে আমাদের দিলে আমরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারবো। প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক পুরো বিষয়টি তদারকি করবে। এই ব্যবস্থার স্বচ্ছতার জন্য, ঋণ গ্রহীতাকে অবশ্যই বিদেশ থেকে ফেরত আসার প্রমাণ দিতে হবে।

ড. সালেহীন জানান, প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের এই ২শ’ কোটি টাকার সঙ্গে শিগগিরই আরও অর্থ যুক্ত হতে পারে। যেমন সরকার যে ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ দিয়েছে সেখান থেকেও আমরা হয়তো এক থেকে দেড় হাজার কোটি টাকার একটা তহবিল পাবো।

বিদেশে আটকা পড়াদের জন্য কী উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, জানতে চাইলে অতিরিক্ত সচিব বলেন, বিদেশে আটকা পড়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য ইতোমধ্যেই ২৩টি মিশনের জন্য অতিরিক্ত ৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। বিদেশে অবস্থানরত কোন প্রবাসী আবাসনের সমস্যা হলে সংশ্লিষ্ট মিশনসমূহকে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদানের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে অসুস্থ হলে বা কোন ধরনের অসুবিধায় পড়লে সেখান থেকে সহায়তা করা হবে।

সম্প্রতি প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে অনেক দেশ অনিয়মিত কর্মীদের ফেরত পাঠাতে চাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে কর্মীরা দেশে এলে যাতে অসহায় হয়ে না পড়েন, সেজন্য তাদেরকে সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হবে। 

ইমরান আহমেদ বলেন, বিদেশফেরত কর্মীদের অধিকতর প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষতার মান উন্নয়ন করে পুনরায় বৈদেশিক কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করার জন্য কূটনৈতিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। বিদেশফেরত কর্মীদের পুনর্বাসনের নিমিত্ত সরকার ও উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার কাছে আর্থিক সহযোগিতার জন্য অনুরোধ করা হবে। এছাড়া যারা ছুটিতে দেশে এসেছেন এবং যাদের ভিসার মেয়াদ উত্তীর্ণ হতে যাচ্ছে। তারা যাতে পুনরায় যেতে পারে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দেশ থেকে আশ্বাস পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, মানবিক বিবেচনায় কয়েকটি দেশ থেকে যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে বিপদগ্রস্ত বাংলাদেশি কর্মীদের দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে সভায় নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে প্রাথমিকভাবে কুয়েত থেকে ৩১৬ জন প্রবাসী বাংলাদেশিকে দেশে ফেরত আনা হবে এবং কুয়েতের সেই ফিরতি ফ্লাইটে ত্রাণ ও খাদ্যসামগ্রী পাঠানোর সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

উল্লেখ্য, বিশ্বের দেশে দেশে প্রায় ১ কোটি ১৯ লাখ বাংলাদেশি রয়েছেন। এদের মধ্যে বর্তমানে প্রায় ২০ লাখের মতো কর্মী করোনা ভাইরাসের প্রভাবে নানা সংকটে আছেন। এরিমধ্যে অনেকেই খাদ্য সংকটে আছেন। বিভিন্ন দূতাবাস বাংলাদেশি কর্মীদের তালিকাও নিচ্ছে। তবে যেই পদ্ধতিতে নিবন্ধন করা হচ্ছে তা কর্মীদের জন্য পুরোপুরি সহায়ক নয় বলেও অভিযোগ রয়েছে। এই কর্মীদের খাবার সহায়তার জন্য মন্ত্রণালয় থেকে এরইমধ্যে ৫ কোটি টাকার বেশি সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ
সুসংবাদ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর