• শনিবার   ০৬ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৩ ১৪২৭

  • || ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

দৈনিক গোপালগঞ্জ
৩৫

রসুন কি সত্যি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়?

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৯ মে ২০২০  

করোনাভাইরাস আতঙ্কে না ভুগে বাড়িয়ে তুলতে হবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। সেজন্য প্রতিদিনের ডায়েটে রসুন রাখতে পারেন। তবে রসুন খেলেই হবে না, কীভাবে কতটুকু খেলে উপকার মিলবে তা জানাও জরুরি। উপকার মিলবে ভেবে একসঙ্গে অনেক বেশি রসুন খেয়ে ফেলবেন না যেন!

বিশ্বজুড়ে বেশিরভাগ রান্নায় রসুন একটি প্রয়োজনীয় উপাদান, এই উপকারী মশলার নতুন করে পরিচয় দেয়ার কিছু নেই। এর তীব্র সুগন্ধ এবং স্বাদ যেকোনো খাবারের স্বাদের পরিমাণ বাড়িয়ে তুলতে পারে। তবে, প্রাচীন ইতিহাসে রসুন কেবলমাত্র তার ওষধি গুণগুলির জন্য ব্যবহৃত হত এবং ধীরে ধীরে এটি রান্নার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা শুরু হয়।

জীববিজ্ঞানে রসুন এলিয়াম সাটিভাম হিসাবে পরিচিত। রসুন মাটির নিচে বৃদ্ধি পায় এবং এর সবুজ পাতাও রান্নার কাজে লাগে। মজার বিষয় হলো, রসুন প্রাকৃতিকভাবে স্তরের মতো পাতলা কাগজ দিয়ে আচ্ছাদিত, যা একেবারেই ভোজ্য নয় তবে কার্যকরভাবে প্রতিটি কোষকে আলাদা করে এবং রসুনকে দূষণের হাত থেকে রক্ষা করে।

রসুন ভিটামিন এবং খনিজ যেমন ভিটামিন বি ১, বি ২, বি ৩, বি ৬, ফোলেট, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, সোডিয়াম, দস্তা, আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ, ক্যালসিয়ামের সমৃদ্ধ উৎস। রসুনকে যাদুকরী প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে অ্যালিসিনের উপস্থিতি, যা বিভিন্ন অসুস্থতার সাথে লড়াই করতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, পুষ্টি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর ফলে রসুন একটি জাদুকরী মশলা হিসেবে পরিচিত। যা বিভিন্ন রোগের চিকিত্সা, করোনারি ডিজিজ, মৌসুমী ফ্লাস, সংক্রমণ ইত্যাদির চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হয়।

রসুন ব্যবহার করার সঠিক উপায়: পুষ্টিবিদদের মতে, রসুনের মূল উপাদান যা জীবাণুর সাথে লড়াই করে তা হলো এলিসিন। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে রসুন ব্যবহারের সর্বোত্তম উপায় এটি কাঁচা খাওয়া। রসুন চিবানোর সময় মুখের মধ্যে অ্যালিসিন বের করে দেয় যা পরে দেহের দ্বারা শোষিত হয়। এটি যখন খাবারের সাথে বা বড়ি আকারে নেয়া হয় তখন কার্যকারিতা একরকম থাকে না, কারণ এটি সরাসরি পেটে যায় এবং সক্রিয় যৌগিক ‘অ্যালিসিন’ পেটের এনজাইমের মাধ্যমে নিষ্ক্রিয় হয়। সুতরাং, আপনি হয় দিনে ২-৩ টি কাঁচা রসুনের কোষ খান অথবা টুকরো করে কেটে স্যুপ, সালাদ ইত্যাদিতে ব্যবহার করতে পারেন যাতে সর্বাধিক উপকারের জন্য এটি চিবানো যায়।

হার্টের জন্য ভালো: ট্রাইগ্লিসারাইড বেড়ে গেলে শেষ পর্যন্ত আপনার হার্টের স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলতে পারে এবং হার্ট অ্যাটাকের কারণ হতে পারে। রসুনে অ্যালিসিনের উপস্থিতি স্বাভাবিকভাবে রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড স্তর হ্রাস করতে সহায়তা করে। খালি পেটে দিনে এক কোয়া রসুন আপনার হার্ট ভালো রাখতে ভীষণ কার্যকরী।

রক্ত পরিশোধন করে: কাঁচা রসুন খাওয়া ত্বক, চুল এবং শরীরের জন্য দুর্দান্ত। এটি সালফারে ভরপুর যা আমাদের শরীরের জন্য একটি অপরিহার্য খনিজ। এই সালফার শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থগুলো বের করে দিতে সহায়তা করে। রসুনে উপস্থিত উপাদানসমূহ রক্তের প্রবাহ থেকে বিষাক্ত পদার্থকে দূর করতে এবং ডিটক্সাইফাইং এনজাইম তৈরি করতে লিভারকে উদ্দীপিত করে।

অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য: ব্যাকটেরিয়া আক্রমণ, পরজীবী এবং বিভিন্ন ছত্রাকের সংক্রমণের কারণে সংক্রমণজনিত রোগের চিকিৎস্র জন্য রসুনের নির্যাস ব্যবহার করা হয়। কয়েকটি সমীক্ষা অনুসারে, রসুনের নির্যাস টেপওয়ার্স, সাধারণ ফ্লু এবং ভাইরাল জ্বর ইত্যাদির মতো রোগ নিরাময়ের জন্য ব্যবহৃত হয়।

ওজন এবং রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণ করে: রসুনের অ্যালিসিন প্রাকৃতিক উপায়ে ট্রাইগ্লিসারাইড পরিচালনা করতে সহায়তা করে যা রক্তে শর্করার মাত্রা উন্নত করে। এছাড়াও কাঁচা মধু এবং কাঁচা রসুনের সংমিশ্রণ ওজন নিয়ন্ত্রণে দারুণ ভূমিকা রাখে। রসুনের তেলের দুর্দান্ত অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা প্রদাহজনিত পেশী ব্যথা উপশম করতে সহায়তা করে। এটি ডায়াবেটিস রোগীদের দ্বারা আক্রান্ত একটি সাধারণ সমস্যা।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ
লাইফস্টাইল বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর