• বৃহস্পতিবার   ০৯ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৫ ১৪২৭

  • || ১৮ জ্বিলকদ ১৪৪১

দৈনিক গোপালগঞ্জ
২২৬

সাধারনের চাইতেও উপকারী যে ফলগুলোর জুস

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৫ মার্চ ২০২০  

সকল ধরনের জুস কিন্তু স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী নয়। তবে বেশিরভাগ প্রাকৃতিক ফলের রসেই রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণ স্বাস্থ্য উপকারিতা। স্বাভাবিকভাবেই উপকারী ফলের রস থেকেও উপকারিতা পাওয়া যাবে। তবে পাঁচটি ফলের রস আমাদের জানার চাইতেও বেশি উপকারিতা বহন করে এবং এ কারণে প্রতিদিনের খাদ্যাভ্যাসে তাদের রাখাটাও জরুরি।

কমলালেবুর রস

কমলালেবুর রস মূলত অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি তথা প্রদাহ বিরোধী উপাদান। ২০১৭ সালের একটি গবেষণার ফল ফুড অ্যান্ড ফাংশন নামক জার্নালে প্রকাশিত হয়। যেখানে দেখা যায়, কয়েক কাপ বিশুদ্ধ চিনিবিহীন কমলালেবুর রস পানে হাই-ফ্যাট-মিল গ্রহণে প্রদাহ দেখা দেওয়াকে প্রতিরোধ করে। এদিকে অন্য একটি পরীক্ষার ফল থেকে দেখা যায় দৈনিক এক কাপ পরিমাণ কমলালেবুর রস পানে রক্তে খারাপ কোলেস্টেরলের (LDL) মাত্রা হ্রাস পায়।

লেবুর রস

 

ওজন কমানোর ক্ষেত্রে উপকারী পানীয় হল লেবু পানি। লেবুর রস ও পানি মিশিয়ে পান করলে শুধুমাত্র বাড়তি মেদ নয়, কিডনির পাথরের মত গুরুতর সমস্যাটিকেও দূর করা সম্ভব হবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার কম্প্রেহেন্সিভ কিডনি স্টোন সেন্টারের ডিরেক্টর রজার এল. সার জানান, যদি আপনার কিডনি পাথরের সমস্যা থাকে তবে প্রতিদিন একটি বড় লেবুর এক লিটার পানিতে মিশিয়ে পান করতে হবে। এতে করে অন্তত ৯০ শতাংশ ক্ষেত্রে কিডনি পাথরের সমস্যাটি দূর হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

আঙুরের রস

অ্যান্থসায়ানিনস (Anthocyanins) ও পর্যাপ্ত পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ আঙুরের রস মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বৃদ্ধিতে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখে। ২০১৭ সালে ইউরোপিয়ান জার্নাল অভ নিউট্রিশিনে প্রকাশিত এক গবেষণার ফল জানায়, গবেষণায় অংশ নেওয়া যে সকল স্বেচ্ছাসেবীরা টানা ১২ সপ্তাহ আঙুরের রস পান করেছিলেন, আগের চাইতে তাদের স্মৃতিশক্তি উন্নত হয় অনেকখানি।

টমেটোর রস

এখানে টমেটো দেখে অবাক হওয়ার কিছু নেই। সবজি হিসেবে পরিচিত টমেটো আদতে একটি ফল। টমেটোতে থাকা বিশেষ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লাইকোপেন প্রস্টেট ও অন্যান্য ক্যানসারের সম্ভাবনা কমাতে কাজ করে। এছাড়া ভিটামিন ও মিনারেল সম্পন্ন টমেটোতে থাকা উচ্চমাত্রার আঁশ পেট ভরা রাখতেও কাজ করে।

ডালিমের রস

ডালিমে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় যে পুষ্টিটি রয়েছে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ সেটা হল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এমনকি গ্রিন টিয়ের চাইতেও বেশি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পাওয়া যাবে এক কাপ পরিমাণ ডালিমের রস থেকে। এই ফলের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মূলত সাহায্য করে ফ্রি রেডিক্যাল ড্যামেজ থেকে রক্ষা করতে। এছাড়া অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থেকে প্রদাহ বিরোধী উপকারিতাও পাওয়া যায়।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ
লাইফস্টাইল বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর