ব্রেকিং:
করোনায় সারাদেশে আরও ৯ জনের প্রাণহানি, শনাক্ত ২৭৫ খোলা বাজারে ডলারের মূল্য ৯০ টাকা ছাড়ালো স্বপ্নের পায়রা সেতু উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৬ খুনের ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার ১০
  • সোমবার   ২৫ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ১০ ১৪২৮

  • || ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

দৈনিক গোপালগঞ্জ

পদ্মা রেলসেতুতে সম্ভাবনার নতুন দিগন্ত

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১  

পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্পের মাধ্যমে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোয় সম্ভাবনার দিগন্ত খুলে যাবে। এই প্রথমবারের মতো রেল যাবে বরিশাল, ঝালকাঠি, বরগুনা, পটুয়াখালীসহ দক্ষিণের নতুন অনেক জেলায়। মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দর, বেনাপোল স্থলবন্দরের সঙ্গে রাজধানী ঢাকা এবং বন্দরনগরী চট্টগ্রামের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হবে। চট্টগ্রাম বন্দরের নির্ভরতা ও চাপ কমে মোংলা বন্দর হয়ে উঠবে আরও গতিশীল, মুখর ও কার্যকর। ঢাকা থেকে যশোর, বেনাপোল, খুলনা, মোংলা পোর্ট, দর্শনার দূরত্ব কমে আসবে ১৬৮ কিলোমিটার থেকে ৩১৮ কিলোমিটার পর্যন্ত। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু (যমুনা) সেতু হয়ে এসব জেলায় পৌঁছাতে প্রায় দ্বিগুণ সময় ব্যয় হয়। রেলসংযোগ প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার কয়েক কোটি মানুষের যাতায়াতের সময় ও ব্যয় সাশ্রয় হবে। পুরো বাংলাদেশের অর্থনীতিই বদলে যাবে। এশিয়া ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে এ সেতু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, পদ্মা সেতু চালু হলে দেশের অর্থনীতিতে সামগ্রিক উৎপাদন, শিল্প, বাণিজ্য, বিনিয়োগ, সেবা, পর্যটন ও কর্মসংস্থানে যে ইতিবাচক গতি তৈরি হবে, প্রথম বছরে তার আর্থিক মূল্য দাঁড়াবে জিডিপির ১ দশমিক ২ শতাংশ। এজন্য পদ্মা সেতু ঘিরে পদ্মার দুই পাড়ে সিঙ্গাপুর ও চীনের সাংহাই নগরের আদলে নতুন শহর গড়ে তোলার কথা বলছেন সংশ্লিষ্টরা। রেলসংযোগের মাধ্যমে নতুন করে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অনেক জেলা রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে।

চীনের অর্থায়নে পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্পের আওতায় ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে যশোর পর্যন্ত ১৬৯ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে গ্রুপ লিমিটেড। প্রকল্পের লক্ষ্য পদ্মা সেতু যেদিন যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে সেদিন থেকেই যেন সেতুর ওপর দিয়ে রেলও চলাচল করতে পারে। পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্পের পরিচালক গোলাম ফখরুদ্দিন আহমেদ চৌধুরী বলছেন, ‘এ প্রকল্পের কাজ সময়মতো শেষ করাটাই চ্যালেঞ্জ। আমরা লক্ষ্য পূরণে কাজ করে যাচ্ছি।’ প্রকল্পসংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত ১৬৯ কিলোমিটার দীর্ঘ পথে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জোন হচ্ছে মাওয়া থেকে ভাঙ্গা অংশ। পদ্মা সেতু যেদিন যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে সেইদিনই রেলসংযোগের মাওয়া থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত ৪২ কিলোমিটার অংশে রেল চালানোর সক্রিয় চেষ্টা করা হচ্ছে। পরে পর্যায়ক্রমে বাকি অংশগুলো কাজ শেষে খুলে দেওয়া হবে। তবে সেতুর মূল অংশে রেলট্র্যাক বসানোর কাজটি কবে নাগাদ শুরু করা যাবে তা এখনো নিশ্চিত নয়। কারণ সেতু কর্তৃপক্ষ এখনই রেলসংযোগ প্রকল্পকে সেতুটি বুঝিয়ে দিতে পারছেন না। এ প্রেক্ষাপটে নির্মাণাধীন পদ্মা সেতুতে একই দিনে সড়ক ও রেল পথ চালু নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন স্বয়ং রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। তিনি বলেন, ‘আমাদের টার্গেট আছে আগামী বছরের জুনে পদ্মা সেতুর সড়কপথ চালুর সঙ্গে একই দিনে ট্রেন চালু করার। যদি তা না করতে পারি তাহলে আগামী বছরের ১৬ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে সেতুর ওপর দিয়ে ভাঙ্গা পর্যন্ত ট্রেন চালুর জন্য খুলে দিতে পারব।’ সম্প্রতি পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্প এলাকা পরিদর্শনে গিয়ে এসব কথা বলেন রেলমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘একই দিনে পদ্মা সেতুর সড়কপথের সঙ্গে রেলপথ চালু না হওয়ার পেছনে সমস্যা হলো- পদ্মা সেতুর ওপর রেললাইন বসাতে ছয় মাস লাগবে। সেতু কর্তৃপক্ষ এখন সেখানে গ্যাস পাইপ লাইনের কাজ করছেন। এ কাজ শেষ করে আগামী বছরের মার্চে তারা সেতুতে রেললাইন বসানোর জন্য আমাদের কাছে হস্তান্তর করবেন। সে ক্ষেত্রে সেতু কর্তৃপক্ষ যদি আগামী ডিসেম্বরে আমাদের রেললাইন বসানোর জন্য দিয়ে দেন, তাহলে আমরা একই দিনে সেতুর সঙ্গে রেললাইনে ট্রেন চালু করতে পারব।’ প্রকল্প কর্মকর্তারা আশা করছেন ২০২৪ সাল নাগাদ শেষ হবে পদ্মা সেতুতে রেলসংযোগ প্রকল্পের ঢাকা-যশোর অংশের কাজ। সেভাবেই প্রকল্প বাস্তবায়নের অগ্রগতি হচ্ছে।

প্রকল্প পরিচালক জানান, পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত ১৬৯ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রথমে ব্যয় ধরা হয় ৩৯ হাজার ২৫৮ কোটি টাকা। ২০১৮ সালের এপ্রিলে ব্যয় আরও ৪ হাজার ২৬৯ কোটি টাকা বাড়িয়ে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হয়। প্রকল্পে স্টেশন থাকছে ১৪টি। ১০০ ব্রডগেজ কোচ সংযুক্ত করা হবে। ২০০ একর জমি অধিগ্রহণ করতে হবে। এ প্রকল্পের খুবই গুরুত্বপূর্ণ জোন হলো মুন্সীগঞ্জের মাওয়া থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত। পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে ঢাকা থেকে যশোর সরাসরি রেলপথ হবে ১৬৯ কিলোমিটার, এর মধ্যে ২৩ কিলোমিটার এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। মাওয়া থেকে ভাঙ্গা অংশের কাজ হয়েছে ৭২ শতাংশ। পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলায় যোগাযোগের ক্ষেত্রে অভাবনীয় পরিবর্তন আসবে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পিছিয়ে পড়া ২১ জেলার মধ্যে খুলনা বিভাগের খুলনা, বাগেরহাট, যশোর, সাতক্ষীরা, নড়াইল, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ ও মাগুরা এবং বরিশাল বিভাগের বরিশাল, পিরোজপুর, ভোলা, পটুয়াখালী, বরগুনা ও ঝালকাঠিতে যাত্রীদের দীর্ঘদিনের বিড়ম্বনা শেষ হবে। ঢাকা বিভাগের গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, শরীয়তপুর ও রাজবাড়ী জেলাও থাকবে রেলসংযোগের আওতাভুক্ত। পদ্মা সেতুর ওপারে সংযোগ সড়ক থেকে ভাঙ্গা উপজেলা হয়ে তিন দিকে তিনটি রাস্তা চলে গেছে। এর একটি বরিশাল, একটি খুলনা অংশে, আরেকটি রাজবাড়ী, যশোর, বেনাপোলে। এ তিনটি রেলপথ যুক্ত হবে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দর এবং বেনাপোল স্থলবন্দরের সঙ্গে।

ফলে তিন বন্দর দিয়েই আমদানি পণ্য দ্রুত ঢাকাসহ শিল্পাঞ্চলগুলোয় প্রবেশ করতে পারবে। এদিকে ঢাকা থেকে ভাঙ্গা হয়ে পায়রা বন্দর পর্যন্ত রেলসংযোগ ২০২৫ সালের মধ্যে বাস্তবায়নের লক্ষ্য ধরা হয়েছে। ভাঙ্গা জংশন থেকে পায়রা বন্দরের দূরত্ব ১৮৯ কিলোমিটার। পায়রা বন্দর থেকে কুয়াকাটা সমুদ্রসৈকতের দূরত্ব ২৩ দশমিক ৮ কিলোমিটার। এ পথে ১২টি প্রধান রেলস্টেশন তৈরি হবে। এগুলো হচ্ছে- মাদারীপুরের রাজৈর ও মাদারীপুর। বরিশালে গৌরনদী, বাবুগঞ্জ বিমানবন্দর ও কাশিপুর রেলস্টেশন। ঝালকাঠির নলছিটি রেলস্টেশন। এ ছাড়া বাকেরগঞ্জ রেলস্টেশন, বরগুনার আমতলী রেলস্টেশন। পটুয়াখালীতে হবে চারটি রেলস্টেশন। এগুলো হচ্ছে পটুয়াখালী রেলস্টেশন, কলাপাড়ায় পায়রা বিমানবন্দর রেলস্টেশন, পায়রা সমুদ্রবন্দর রেলস্টেশন ও কুয়াকাটা রেলস্টেশন। এর বাইরে বেশ কিছু সাবস্টেশন তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে। জানা গেছে, পদ্মা সেতু বাস্তবায়নের পাশাপাশি পদ্মার চরাঞ্চলে অলিম্পিক ভিলেজ, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সিটি, হাইটেক পার্ক, বিমানবন্দরসহ নানা উন্নয়ন পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। পদ্মা সেতুসংলগ্ন জাজিরার নাওডোবায় প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে শেখ হাসিনা তাঁতপল্লী গড়ে তোলা হচ্ছে। পদ্মা সেতুর সঙ্গে গ্যাস যাচ্ছে দক্ষিণের অনেক জেলায়।

এর আগে খুলনা, যশোরসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পাঁচ জেলায় পাইপলাইনে গ্যাস সরবরাহের জন্য গত চারটি সরকার ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা খরচ করেছে। কিন্তু ১৪ বছরেও এসব এলাকায় গ্যাস যায়নি। সর্বশেষ গ্যাস সরবরাহের প্রকল্পই বাদ দেওয়া হয়েছে। পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে গ্যাসলাইন নির্মাণ শেষ হলে আগের প্রকল্পের ১৬৫ কিলোমিটার সঞ্চালন লাইন কজে লাগানো যাবে। শিল্পায়নে বড় ভূমিকা রাখবে এটি। পদ্মা সেতু রেলসেতু সংযোগ প্রকল্পের আওতায় ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত ১৬৯ কিলোমিটার রেলপথের অপেক্ষাকৃত নিচু জায়গায় প্রায় ২৩ কিলোমিটার উড়াল রেলপথ নির্মিত হবে। ছোট বড় ৩ শতাধিক সেতু, কালভার্ট, আন্ডারপাস থাকবে এ পথে। একটি হাইওয়ে ওভারপাস এবং ২৯টি লেভেলক্রসিং নির্মিত হবে। ১৪টি নতুন স্টেশন নির্মিত হবে আর বিদ্যমান ছয়টি স্টেশনের অবকাঠামো সংস্কার ও উন্নয়ন করা হবে। বর্তমানে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত অংশকে পদ্মা সেতুর সড়কপথের সঙ্গে চালুর অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে। রেল মন্ত্রণালয় বলছে, রেলট্র্যাক নির্মাণের জন্য ডিসেম্বরের মধ্যে পদ্মা সেতু বুঝে পেলে মাওয়া-ভাঙ্গা অংশটি পদ্মা সেতুর সড়কপথের সঙ্গেই চালু করা যাবে। আর অন্য দুই অংশ ঢাকা-মাওয়া এবং ভাঙ্গা-যশোর অংশের কাজ ২০২৪ সাল নাগাদ শেষ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর অর্থনীতিবিদ ড. আতিউর রহমান বলেছেন, ‘পদ্মা সেতু বাস্তবায়নের সুফল পুরোপুরি পেতে হলে দক্ষিণাঞ্চলের মেগা প্রকল্পগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন করা দরকার। বিশেষ করে মোংলা বন্দর, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ অন্যান্য প্রকল্পে গতি আনতে হবে। পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে দক্ষিণাঞ্চলের উদ্যোক্তাদের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে এক ধরনের কনফিডেন্স তৈরি হচ্ছে। এ সেতু ঘিরে শিপ বিল্ডিং, পর্যটন, ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা (এসএমই) খাতের বড় ধরনের বিকাশ ঘটবে। গড়ে উঠবে পর্যটন কেন্দ্র। অনেক রকম অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের বিকাশ ঘটবে সেখানে।’

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ