• মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ১ ১৪৩১

  • || ০৮ মুহররম ১৪৪৬

দৈনিক গোপালগঞ্জ

একই দিনে একজন মানুষের তিনটি ফোন কীভাবে হারায়, প্রশ্ন আনারকন্যার

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ১২ জুন ২০২৪  

ভারতে নিহত ঝিনাইদহ-৪ এর সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন বলেছেন, গিয়াস বাবু নামে যাকে আটক করা হয়েছে, তিনি আমার বাবার প্রতিপক্ষ নন। আমাদের সঙ্গে তার কোনো শত্রুতা নেই।

আমার মনে অনেক প্রশ্ন জাগছে। আপনারা দেখেছেন, আটকের আগে থানায় তিনি (গিয়াস বাবু) জিডি করেছেন যে, তার তিনটি ফোন হারিয়ে গেছে। একই দিনে একজন মানুষের তিনটি ফোন কীভাবে হারিয়ে যায়, সেটাও আমার প্রশ্ন।  
বুধবার (১২ জুন) বিকালে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কক্ষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে দেখা করার পর উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে এসব কথা বলেন আনারকন্যা।

মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন বলেন, গেল ১৭ তারিখে তার (গিয়াস বাবু) সঙ্গে ভাঙায় দেখা হয়েছে, সেখানে টাকা লেনদেনের একটা কথা উঠেছে, যা আমি খবরে শুনেছি। আমার কথা হলো, এই টাকার জোগানদাতা কে? কেনো তারা এটা করিয়েছে? এগুলো কী পরিকল্পিতভাবে করা হয়েছে! গিয়াস বাবু তো আমার বাবার শত্রু না। এই কাজগুলো কে করাচ্ছে, সেটা আমি বারবার বলেছি।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আসার বিষয়ে তিনি বলেন, আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আঙ্কেলের কাছে এসেছি যে আমার বাবা যে হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন, সেটার যাতে সঠিক বিচার হয়। সঠিক বিচারটা যাতে আমাকে নিশ্চিত করে, সেই দাবি জানাতে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এরইমধ্যে অনেককে আটক করা হয়েছে। আমি শুনেছি, অপরাধীদের বাঁচাতে অনেক জায়গা থেকে তদবির করা হচ্ছে। তাদের যেন ছেড়ে দেওয়া হয়, সে জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। কোনো তদবিরের চাপে পড়ে এই হত্যাকাণ্ডের বিচার যাতে বন্ধ করার চেষ্টা না করা হয়, চাপের মুখে যাতে সঠিক তদন্ত বন্ধ করা না হয়, সেই দাবি জানিয়েছি। আমি সঠিক বিচার চাই।

আনারকন্যা বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টু চাচাকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডিবি নিয়ে গেছে। অবশ্যই তাদের কাছে সত্যিকারের কোনো তথ্যপ্রমাণ আছে, সেটা আমি নিজেও জানি। সেই প্রমাণের সাপেক্ষেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আসলে এই হত্যাকাণ্ডের বিচার চাই। সঠিক তদন্তের মাধ্যমে আইনে যেভাবে বলা হয়েছে, সেভাবে যাতে আমার বাবার হত্যার বিচার করা হয়, আমি সেই দাবি জানিয়েছি। আমি শুনেছি, অনেক তদবির করা হচ্ছে। অনেক বড় বড় জায়গা থেকে ফোন আসছে, তাদের ছাড়িয়ে নেওয়ার জন্য।

এদিকে, সঠিক বিচারের আশ্বাস দিয়ে ডরিনকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ ক্ষেত্রে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। যেটা আইনে আসবে, যেটা সত্য, সেটার বিচার হবে। আমি বিশ্বাস করি, অপরাধীদের তিল পরিমাণ ছাড় দেন না প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ