• রোববার   ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২৩ ১৪২৯

  • || ১৪ রজব ১৪৪৪

দৈনিক গোপালগঞ্জ

নেইমার নৃত্যের অপেক্ষা

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ৯ ডিসেম্বর ২০২২  

বিশ্বকাপ, ব্রাজিল, নেইমার, হেক্সা... সমর্থকদের কাছে শব্দগুলো এক সুতোয় গাঁথা। তবে শব্দগুলো এক সুতোয় গাঁথতে গেলেই অনাকাক্সিক্ষত একটা শব্দ ঢুকে পড়ে, সেটা হচ্ছে চোট। বিশ্বকাপে নেইমার চোট পাবেন না, এমনটা হয় না। এ যেন চিরন্তন সত্য। কাতারেও নেইমার এসেছেন, প্রথম ম্যাচে সার্বিয়ার বিপক্ষে ৯টা ফাউলের শিকার হয়ে দুটো ম্যাচে দর্শক হয়েছেন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে মাঠে নেমে গোলও করেছেন। বিশ্বকাপে নেইমার আর কতটা ম্যাচ খেলতে পারবেন, সেটা আসলে ঠিক করতে হবে নেইমারকেই। আজ ক্রোয়েশিয়ার কাছে হারলে এবারের মতো এখানেই শেষ হেক্সার স্বপ্ন, আর জিতলে আর্জেন্টিনার সঙ্গে সম্ভাব্য সেমিফাইনাল।

২০১৪ বিশ্বকাপে ব্রাজিল স্বাগতিক। সেলেসাও দলের কেন্দ্রবিন্দুতে নেইমার। কলম্বিয়ার কামিলো সুনিগা নেইমারের পিঠে লাফিয়ে উঠে যে গুঁতোটা দিয়েছিলেন, তাতে সেরে উঠতে সময় লেগেছিল ছয় সপ্তাহেরও বেশি। সেমিফাইনালে নেইমারের জার্সি হাতে সতীর্থদের আবেগে ভেসে যাওয়া কণ্ঠে জাতীয় সংগীত গাইতে দেখেই জার্মানরা বুঝে গিয়েছিল, ‘ব্লিৎজক্রিগ’এর এখনই সময়! ফল, কুখ্যাত ৭-১ গোলের হার।

২০১৮ বিশ্বকাপের আগেও তার খেলা নিয়ে শঙ্কা। পায়ের পাতার চোটে ৩ মাস ধরে ফুটবলের বাইরে থাকার পর মাঠে ফিরলেন। কোয়ার্টার ফাইনালে বেলজিয়ামের বিপক্ষে শেষ মুহূর্তে থিবো কোর্তোয়া বাঁচিয়ে দিলেন নেইমারের শট, ব্রাজিলও পারল না সমতা ফেরাতে এবং নিল বিদায়। তবে রাশিয়া বিশ্বকাপে নেইমার যতটা না সুনাম কুড়িয়েছেন, তার চেয়ে বেশি সমালোচনা শুনেছেন অহেতুক গড়াগড়ির অভিনয় করে।

এবারের বিশ্বকাপে আসার আগে অবশ্য নেইমার ছন্দেই ছিলেন। লিগ ওয়ানে চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত ১৪ ম্যাচে ১১ গোল, উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে ৫ ম্যাচে ২ গোল। লাতিন আমেরিকার বিশ্বকাপ বাছাই পর্বেও ৮ গোল করে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েই কাতারে পা রেখেছেন নেইমার। কিন্তু মাঠে নামার পর সেই পায়ে সার্বিয়ানদের একের পর এক আঘাত সহ্য করতে পারেননি। ম্যাচশেষে ছবি তুলে দেখিয়েছেন, কতটা ফুলে গেছে গোড়ালি। অথচ ব্রাজিলেই নেইমারের চোট নিয়ে অনেকে উলটো হাসাহাসি করেছেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ট্রলও হয়েছে। এসব দেখে ক্ষেপে গিয়ে ব্রাজিলের রোনালদো নিজের ইন্সটাগ্রাম অ্যাকাউন্টে নেইমারের কাছে খোলা চিঠিতে নিজের বিস্ময় প্রকাশ করেছেন, জানতে চেয়েছেন কীভাবে কিছু মানুষ উল্লাস করতে পারে নেইমারের চোটে!

অবশ্য এমন ভিলেন হয়ে ওঠার পেছনে নেইমারের দায়টাও কম নয়। মেসি-রোনালদো পরবর্তী সময়ে সবচেয়ে বড় ফুটবলার হয়ে ওঠার সম্ভাবনা ছিল নেইমারের মাঝেই। কিন্তু প্রায়ই তার মনোযোগ ফুটবলের সীমানা পেরিয়ে যায়। নেইমার ভিন ডিজেলের সিনেমায় অতিথি চরিত্রে অভিনয় করেন, বিশ্বে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে স্প্যানিশ সিরিজ ‘লা কাসা দে পাপেল’ এও তাকে অতিথি চরিত্রে দেখা যায়, গানের মিউজিক ভিডিওতেও নেইমার অংশ নেন। আবার অন্যদিকে ২০১৯ সালের কোপা আমেরিকায় যখন চোটের কারণে খেলা হলো না নেইমারের, আর সেটা জিতে গেল ব্রাজিল; তার পর থেকেই সাধারণ মানুষের কাছে নেইমারের অবস্থানটা বদলে গেছে। রোনালদোই লিখেছিলেন,  ‘তুমি হচ্ছো নেইমার। দেখিয়ে দাও। বন্ধ করে দাও সব সমালোচকদের মুখ’।

চোট কাটিয়ে ফিরে এসে নেইমার দেখিয়ে দিয়েছেন যে মাঠে নামলে তার পক্ষে কী করা সম্ভব। সুইসদের বিপক্ষে ম্যাচেও তো রিচার্লিসন-ভিনিসিয়ুসরা ছিলেন। কিন্তু রক্ষণদুর্গে ফাটল ধরাতে পারেননি। নেইমার মাঠে নামতেই সব পালটে গেছে। কারণ নেইমার ফেরায় ধার আর কৌশল খেলায় যোগ হয়েছে, দক্ষিণ কোরিয়ার পক্ষে সম্ভব হয়নি ব্রাজিলকে আটকানোর।

যদিও এখন পর্যন্ত একটাই মাত্র গোল করেছেন নেইমার, সেটাও এসেছে পেনাল্টি থেকে, তারপরও ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে নেইমারই তুরুপের তাস। ২০১৮-তে বিশ্বকাপের আগে প্রীতি ম্যাচে গোল আছে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে, লম্বা সময় বার্সেলোনায় খেলার সুবাদে জানেন কীভাবে লুকা মদ্রিচকেও এড়াতে হবে।

বিশ্বকাপে টিকে থাকতে হলে তাই নেইমারকে গোল করতে হবে, করাতেও হবে। না হলে প্রত্যাবর্তনের পরের ম্যাচটাই বিদায়ের ম্যাচ হয়ে যেতে পারে নেইমারের।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ