• বুধবার ২৯ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪৩১

  • || ২০ জ্বিলকদ ১৪৪৫

দৈনিক গোপালগঞ্জ

রাতে তাজমহলের লাইট জ্বালানো হয় না, রহস্য কী?

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ২৬ অক্টোবর ২০২৩  

তাজমহল বিশ্বের সপ্তম আশ্চর্যের মধ্যে একটি এবং গোটা বিশ্ব থেকে লাখ লাখ মানুষ দেখতে আসেন। এই সুন্দর ইমারতকে ঘিরে কতই না রহস্য আছে, তার আর ইয়াত্তা নেই।

তবে আপনি জানলে অবাক হবেন আজ পর্যন্ত তাজমহলে কোনো বাতি লাগানো হয়নি। অনেকে মনে করেন রাতে এর সৌন্দর্য আরো বেড়ে যেতে পারে। তাহলে এবার জেনে নেওয়া যাক রাত্রিবেলায় তাজমহলে লাইট না জ্বালানোর রহস্য কী?

তাজমহল উত্তর প্রদেশের আগ্রা শহরে অবস্থিত, যা একটি বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান। ১৯৬৩ সালে ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হয়ে ওঠে। মুঘল সম্রাট শাহজাহান তার স্ত্রী মমতাজের স্মরণে তাজমহল তৈরি করেছিলেন। এটি তৈরি করতে প্রায় ২২ বছর লেগেছিল। কথিত আছে, দিনের বেলায় তাজমহল সূর্যের আলোর বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রঙের দেখায়।

চাঁদের আলোতে তাজমহল

তাজমহল তৈরিতে সাদা মার্বেল পাথর ব্যবহার করা হয়েছে। কিন্তু এই সাদা রঙ আলোতে সবচেয়ে বেশি প্রতিফলিত হয়। কিন্তু এবার যদি তাজমহলের উপর লাইট লাগানো হয় তাহলে সেই আলোতে তাজমহল আরো বেশি ঝলমল করবে। যার কারণে পোকামাকড় তাজমহলের দিকে আকৃষ্ট হবে এবং সাদা মার্বেলের ওপর বসে ক্ষতি করবে।

এমনিতেই তাজমহলের চারপাশে দূষণ আগের চেয়ে অনেক বেশি ক্ষতি করছে। তাই যদি এমন পরিস্থিতিতে তাজমহলে লাইট বসানো হয় তাহলে আরো ক্ষতি হবে। এছাড়া প্রত্নতাত্ত্বিকরা মনে করেন যে, তাজমহল বানানোর সময় ভাবা হয়েছিল যে এটি রাতে চাঁদের আলোয় ঝলমল করবে, এই কারণে বাতি লাগানোর প্রয়োজন বলে মনে হয়নি।

পূর্ণিমার চাঁদ ও তাজমহল

কিন্তু এখন যদি তাজমহলকে কৃত্রিম আলো দিয়ে আলোকিত করা যায়, তাহলে এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য কমে যাবে। এই কারণে পর্যটকরা পূর্ণিমার সময় তাজমহলের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখতে আসে এবং তারা এই সৌন্দর্যের প্রশংসাও করে। তাই তাজমহলকে কৃত্রিম আলোয় আলোকিত করা হলে পর্যটকদের এই আকর্ষণ কমে যাবে। তাজমহলে বাতি না বসানোর এটিও একটি কারণ।

তাজমহলের রাতের দৃশ্য

কথিত আছে, মমতাজের আত্মা এখনো তাজমহলের মধ্যেই রয়েছে। রাত্রিবেলা এর উপস্থিতি পাওয়া যায় বলেও অনেকে দাবী করেছেন। একবার রাত্রিবেলায় তাজমহলে লাইট জ্বালানো হয়েছিল, কিন্তু কোনো কারণে সমস্ত বাতিগুলো নিভে যায়। সম্ভবত এই কারণে আর কখনো তাজমহলে লাইট লাগানো হয়নি, যা আজও একটি রহস্য।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ