• সোমবার ২০ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলকদ ১৪৪৫

দৈনিক গোপালগঞ্জ

নির্বাচনে মাঠে থাকবেন ২৫৩৬ জন ম্যাজিস্ট্রেট

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  

নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা করতে আগামী ২৪ ডিসেম্বর থেকে ২ জানুয়ারি পর্যন্ত মাঠে থাকবে সেনাবাহিনী। রিটার্নিং কর্মকর্তা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় করে তারা দায়িত্ব পালন করবে। তবে বিচারিক ক্ষমতা প্রয়োগ করবেন ২৫৩৬ জন জুডিশিয়াল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। তাদের মধ্যে ৬৫২ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আচরণবিধি প্রতিপালনের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। ২৪৪ জন যুগ্ম জেলা জজ ও সহকারী জজও মাঠে আছেন। পাশাপাশি নির্বাচনের সময় চারদিন ৬৪০ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া পুলিশ, র্যাব, বিজিবি, কোস্টগার্ড ও সেনাবাহিনীর সঙ্গে হাজারখানেকের মতো নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনের চার দিন দায়িত্ব পালন করবেন।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ জানান, নির্বাচনের সাত দিন আগে সব সংসদীয় আসনে ব্যালট পেপার পাঠাতে সক্ষম হবে ইসি। এখনো বেশ কিছু আসনে প্রার্থিতা নিয়ে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অপেক্ষমাণ থাকায় সেসব আসন বাদ দিয়ে বাকি আসনগুলোর ব্যালট পেপার ছাপানোর কাজ চলছে। তবে ৩০ ডিসেম্বরের আগেই সব জেলার রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কাছে ব্যালট পেপার পৌঁছে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, নির্বাচনের আগে আটটি বিভাগে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন নির্বাচন কমিশনাররা। পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলা নিয়ে আগামী ১৮ ডিসেম্বর রাঙামাটিতে একটি সমন্বয় সভা করবে কমিশন। ওইদিন বিকালে চট্টগ্রামে বিভাগীয় সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হবে। এর পর অন্য বিভাগগুলোয়ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও থানার ওসিদের সঙ্গে সমন্বয় সভা করবেন নির্বাচন কমিশনাররা।

নির্বাচন পর্যবেক্ষণের বিষয়ে দেশি ও বিদেশি পর্যবেক্ষকদের জন্য আলাদা নীতিমালা আছে। তবে সাংবাদিকদের জন্য লিখিত কোনো নীতিমালা নেই। আইনশৃঙ্খলা সমন্বয় সভায় বিভিন্ন বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার প্রধানরা সাংবাদিকদের জন্য একটি নীতিমালা প্রণয়নে তাগিদ দিয়েছেন। তাই সাংবাদিকদের জন্য আলাদা একটি নীতিমালা তৈরির চিন্তাভাবনা করছে কমিশন। কমিশনাররা বলেছেন, সাংবাদিকরা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবেন, ছবি তুলতে পারবেন ও ভোটারদের প্রতিক্রিয়াও নিতে পারবেন। তবে কেন্দ্র থেকে সরাসরি সম্প্রচার না করার বিষয়ে কমিশনের পর্যবেক্ষণ আছে। এ বিষয়ে পরবর্তীতে নির্দেশনা দেওয়া হবে।

কমিশন সূত্র জানায়, নির্বাচনে প্রতিটি উপজেলায় একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্বে থাকবেন। সিটি করপোরেশন এলাকায় কয়েকটি ওয়ার্ডে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন। প্রতিটি জেলার পৌর সদরে একজন অথবা দু’জন করে ম্যাজিস্ট্রেট রাখা হবে।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ