• সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৩ ১৪৩১

  • || ০৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

দৈনিক গোপালগঞ্জ

সর্বজনীন পেনশনের আওতায় আসছেন এমপিওভুক্তরা

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ২ জুন ২০২৪  

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আনার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ জন্য একটি প্রতিবেদন তৈরির লক্ষ্যে ১৬ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. রবিউল ইসলামকে আহ্বায়ক করে গঠিত ওই কমিটি আজ রোববার প্রথম সভায় বসবে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।  

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গঠন করা ওই কমিটিতে শিক্ষার বিভিন্ন দপ্তর ও জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিকে রাখা হয়েছে। এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিল ও অবসর- সুবিধার বিদ্যমান জটিলতা স্থায়ীভাবে নিরসন এবং তাঁদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আনতে একটি প্রতিবেদন তৈরি ও সুপারিশ করবে ওই কমিটি। এরপর সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

জানা যায়, শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির দ্বিতীয় বৈঠকে বেসরকারি শিক্ষক ও কর্মচারীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আনার বিষয়টি উঠে আসে। বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী এ-সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন তৈরি করে সংসদীয় কমিটিতে উপস্থাপনের নির্দেশ দেন। বৈঠকের কার্যবিবরণী পাস হয় গত ৬ মে। এরপরই শিক্ষা মন্ত্রণালয় ১৬ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করে।

সংসদীয় কমিটির ওই বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, অবসরসুবিধা প্রাপ্তির জন্য অনিষ্পন্ন আবেদনের সংখ্যা অনেক বেশি হওয়ার একটা রাজনৈতিক কারণ রয়েছে। বিএনপি সরকার এই খাতে অর্থ বরাদ্দ না দিয়ে একটা বিশাল গ্যাপ তৈরি করে। পরবর্তী সময়ে ২০১৫ সালের বেতন স্কেলে বেতন-ভাতা শতভাগ বৃদ্ধি পাওয়ায় এই খাতের ব্যয়ও বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। তারপরও সরকার এ সমস্যা সমাধানে আন্তরিকভাবে কাজ করছে।

বর্তমানে এমপিওভুক্ত স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৯ হাজার ১৬৪টি। এর মধ্যে স্কুল-কলেজ ২০ হাজার ৪৩৭টি, বাকিগুলো কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও মাদ্রাসা। এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী আছেন সাড়ে ৫ লাখের মতো।

এমপিওভুক্ত স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা ১৯৯০ সাল থেকে কল্যাণ ট্রাস্টের সুবিধা পেয়ে আসছেন। ২০০৫ সাল থেকে শুরু হয়েছে অবসরসুবিধা দেওয়া। এই দুই সুবিধা বাবদ শিক্ষকেরা চাকরিকাল অনুযায়ী এককালীন অর্থ পান। আইন অনুযায়ী, শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিও (বেতনের সরকারি অংশ) থেকে চাঁদা হিসাবে প্রতি মাসে নির্দিষ্ট পরিমাণে অর্থ কেটে রাখা হয়। এর মধ্যে অবসরসুবিধা বোর্ড ৬ শতাংশ এবং কল্যাণ ট্রাস্ট ৪ শতাংশ পায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, কল্যাণ ট্রাস্টে বছরে গড়ে আবেদন পড়ে ১৬ হাজার ৮০০ থেকে ১৭ হাজার, যা নিষ্পন্ন করতে প্রয়োজন ৭২০ কোটি টাকা। আর অবসরসুবিধা বোর্ডে বছরে ১০ হাজার ৮০০টি আবেদন পড়ে। এসব আবেদন নিষ্পন্ন করতে প্রয়োজন ১ হাজার ৩২০ কোটি টাকা। দুই খাতে প্রতিবছর ৫৭০ কোটি টাকা ঘাটতি থাকে। বর্তমানে কল্যাণ ট্রাস্ট ও অবসরসুবিধা বোর্ডে প্রায় ৬৭ হাজার আবেদন পেন্ডিং রয়েছে। এসব আবেদন নিষ্পত্তি করতে ৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকা প্রয়োজন।

এমন প্রেক্ষাপটে গত ২২ ফেব্রুয়ারি এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের আর্থিক ও অবসরসুবিধা অবসরের ছয় মাসের মধ্যে দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে রায় দেন হাইকোর্ট। তহবিলসংকটের কারণে অনেক শিক্ষক-কর্মচারী অবসর নেওয়ার পর তিন-চার বছর পরেও প্রাপ্য আর্থিক সুবিধা পান না বলে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির আলোচনায়ও উঠে আসে। এ অবস্থায় এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় এনে আর্থিক ও অবসরসুবিধাসংক্রান্ত জটিলতার নিরসন করতে চায় সরকার।  

উল্লেখ্য, ২০২৩ সালের ১৭ আগস্ট সর্বজনীন পেনশন স্কিম উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুরুতে প্রবাস, প্রগতি, সুরক্ষা ও সমতা নামে চারটি স্কিম দিয়ে সর্বজনীন পেনশন স্কিমের যাত্রা শুরু হয়। পরে সব স্ব-শাসিত, স্বায়ত্তশাসিত, ও রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য ‘প্রত্যয়’ নামে নতুন স্কিম চালু করা হয়। গত ১৩ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মচারীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিম ‘প্রত্যয়’য়ে যুক্ত হতে প্রজ্ঞাপন জারি করে অর্থ মন্ত্রণালয়, যা আগামী ১ জুলাই থেকে কার্যকর হওয়ার কথা। এ প্রজ্ঞাপন বাতিলের দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক-কর্মচারীরা। 

এ অবস্থায় কোন প্রক্রিয়ায় এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অন্তর্ভুক্ত করা হবে—এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রবীণ শিক্ষকনেতা কাজী ফারুক আহমেদ। তিনি বলেন, শিক্ষকদের পেনশনের আওতায় আনার দাবি দীর্ঘদিনের। এটাও মনে রাখতে, বেসরকারি এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা কিন্তু পূর্ণাঙ্গ বেতন স্কেল পান না। তাহলে তাঁরা কোন প্রক্রিয়ায় সর্বজনীন পেনশনে অন্তর্ভুক্ত হবেন? এ ক্ষেত্রে অংশীজনদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে বাস্তবতার নিরিখে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। 

কাজী ফারুক আহমেদ আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকেরাও এটা মানছেন না। এ সমস্যারও সমাধান হওয়া প্রয়োজন।

সার্বিক বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে এ বিষয়ে প্রতিবেদন তৈরিতে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিষয়টি এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ