• সোমবার ২০ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলকদ ১৪৪৫

দৈনিক গোপালগঞ্জ

রূপচর্চায় ভেষজ পণ্য ব্যবহার করবেন কেন

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

রূপচর্চায় প্রাকৃতিক পণ্যর আলাদা গুরুত্ব রয়েছে। বাজারজাত প্রসাধনীতে অনেক সময় ত্বকের ক্ষতি হয়। এ কারণে প্রাকৃতিক বা ভেষজ পণ্য দিয়ে রূপচর্চার ব্যাপারে সচেতনতা বেড়েছে। 

ত্বকে ভেষজ পণ্য ব্যবহারে যেসব উপকারিতা হয়-

ভেষজ পণ্যে রাসায়নিক থাকে না। এ কারণে এসব পণ্য ত্বক কোমল রাখে। পাশাপাশি ত্বকের যে কোনও ধরনের অ্যালার্জি প্রতিরোধ করে।  তৈলাক্ত থেকে শুরু করে সংবেদনশীল সব ধরনের ত্বকের জন্যই ভেষজ পণ্য উপযুক্ত। ক্যামোমাইল, ঘৃতকুমারী, হলুদ এবং ক্যালেন্ডুলার মতো উপাদানগুলি প্রদাহ-বিরোধী প্রভাবের জন্য পরিচিত। এ কারণে অনেকের পছন্দ এসব পণ্য। 

বিভিন্ন প্রাণীর উপর পরীক্ষা করে রাসায়নিক পণ্য প্রস্তুত করা হয়, ভেষজ পণ্যগুলির ক্ষেত্রে এটি হয় না। ভেষজ পণ্যগুলো সরাসরি উদ্ভিদ থেকে প্রাপ্ত। এ কারণে এগুলোকে  'প্রাকৃতিক' পণ্য বলা হয়। 

সুগন্ধি উদ্ভিদ থেকে নেওয়া নির্যাসের কারণে ভেষজ পণ্যের গন্ধ খুব সুন্দর হয়। অ্যালোভেরা, ক্যামোমাইল, চন্দন, হলুদ ইত্যাদি উপাদানের প্রাকৃতিক সুগন্ধ রয়েছে। একইভাবে, ল্যাভেন্ডার, ক্যামোমাইল, রোজমেরি এবং লেবুর অপরিহার্য তেল সুগন্ধের জন্য জনপ্রিয়। এসব উপাদান থেকে তৈরি ভেষজ পণ্য প্রাকৃতিক ত্বকের যত্নে ব্যবহার করা হয়, যা মনকে শান্ত করে। এসব প্রাকৃতিক তেলের সুগন্ধ মানসিক চাপও কমায়। অন্যদিকে রাসায়নিকযুক্ত পণ্য ত্বকের জ্বালাসহ নানা ধরনের সমস্যা তৈরি করে। 

এটা বলা ভুল হবে যে ভেষজ পণ্য কোনো ধরনের অ্যালার্জি সৃষ্টি করে না। এটি অনেকের জন্য উপযুক্ত নাও হতে পারে, তবে রাসায়নিক পণ্যের তুলনায় এটি খুব কম অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। এ কারণে কোন ধরনের ভেষজ পণ্য আপনার জন্য উপযুক্ত তা জেনে নি। 

রাসায়নিক এবং কৃত্রিম পণ্য আপনার ত্বকে তাৎক্ষণিক উজ্জ্বলতা দিতে পারে, তবে কিছু সময়ের পরে এই উজ্জ্বলতা থাকে না। ভেষজ এবং প্রাকৃতিক পণ্য ব্যবহারে ত্বকে উজ্জ্বলতা আসতে সময় লাগতে পারে কিন্তু এর প্রভাব ত্বকে অনেকদিন দৃশ্যমান থাকে। প্রাকৃতিক উপাদানে রয়েছে ভিটামিন, খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ত্বককে উজ্জ্বল করে এবং বার্ধক্যের লক্ষণ কমায়। প্রাকৃতিক উপাদানগুলির সাহায্যেই ত্বক হয়ে উঠতে পারে নিখুঁত। কারণ এতে কোনও কৃত্রিম সুগন্ধি, জটিল রাসায়নিক থাকে না।

ভেষজ পণ্যগুলি প্রয়োজনীয় পুষ্টির সাথে প্যাক করা হয়। ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা কোলাজেন উৎপাদন থেকে আসে। অনেক ভেষজ পণ্যই এই প্রয়োজনীয় পুষ্টি দিয়ে প্যাক করা হয়। শুধু তাই নয়, ভেষজ পণ্যে অনেক ভিটামিন, খনিজ, প্রয়োজনীয় ফ্যাটি অ্যাসিড, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং ময়েশ্চারাইজিং রয়েছে যা ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে। উদ্ভিদের নির্যাসে উপস্থিত ফ্ল্যাভোনয়েড ত্বককে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস থেকে রক্ষা করে। এতে উপস্থিত ভিটামিন এ, সি, ই এর মতো উপাদান ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়। জিঙ্ক এবং কপারের মতো উপাদানগুলি ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা এবং দৃঢ়তা বাড়িয়ে ত্বক সুস্থ রাখে। 

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ