• বুধবার ২৯ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪৩১

  • || ২০ জ্বিলকদ ১৪৪৫

দৈনিক গোপালগঞ্জ

যে পাঁচ দিন রোজা রাখা হারাম

দৈনিক গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ১৭ এপ্রিল ২০২৩  

রোজা পালনকারীদের জন্য অনেক সওয়াব ও পুরস্কারের ঘোষণা রয়েছে কোরআন ও হাদিসে। ইসলামের পাঁচ স্তম্ভের মধ্যে রোজা অন্যতম। এজন্য মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তাআলা রমজান মাসের পুরো এক মাসই রোজার জন্য বরাদ্দ করে দিয়েছেন তার বান্দাদের। এবং রমজান ছাড়াও বছরের কিছু নির্দিষ্ট দিনে নফল রোজা রাখার বিধান রয়েছে। যেমন-

আরবি বর্ষপূঞ্জির ৯ম মাস তথা রমজানে রোজা রাখা ফরজ। বাকি ১১ মাস সুন্নাত-মুস্তাহাব ও নফল রোজা রাখার নিয়ম রয়েছে। তবে বছরে পাঁচটি দিন এমন রয়েছে, যেদিনগুলোয় রোজা রাখা হারাম বা নিষিদ্ধ।

যেদিনগুলোতে রোজা রাখা হারাম

> ঈদুল ফিতরের (১ শাওয়াল) দিন।
> ঈদুল আজহার (১০ জিলহজ) দিন।
> ঈদুল আজহার পরের ৩ দিন। অর্থাৎ জিলহজ মাসের ১১, ১২ ও ১৩ তারিখের দিন।

উক্ত পাঁচদিন সব ধরনের রোজা রাখা হারাম বা নিষিদ্ধ। অবশ্য তামাত্তু বা কিরানকারী হাজিগণ যদি কোনো কারণে কোরবানি দিতে অপারগ হয় তাহলে এর পরিবর্তে মক্কায় জিলহজ মাসের ১১, ১২ ও ১৩ তারিখে রোজা রাখবে।

উল্লেখ্য, বিরামহীনভাবে সারাবছর রোজা রাখা নিষেধ। কেউ সারাবছর নফল রোজা রাখতে চাইলে তার করণীয় হলো, বিরামহীনভাবে না রেখে এক দিন পরপর রাখা। এটি ছিল দাউদ (আ.) এর আদর্শ। রাসূল (সা.) এটিকে সর্বোত্তম পদ্ধতি হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

দৈনিক গোপালগঞ্জ
দৈনিক গোপালগঞ্জ